দাঁতের দাগ দূর করা এবং দাঁত সাদা করার উপায়

একটি উজ্জ্বল ও সুন্দর হাসি আপনার আত্মবিশ্বাস এবং আপনার মুখের স্বাস্থ্য উভয়ের জন্যই দারুন ভাবে কাজ করতে পারে। যদি আমাদের সেই হাসি মলিন হয়ে যায় সে ক্ষেত্রে আমাদের সবারই মন খারাপ থাকে। কি কি কারণে আমাদের মুখের দাগ হয়ে থাকে এবং এই দাগের প্রতিকার কি হতে পারে? এর চিকিৎসা পদ্ধতি আমরা কি দিয়ে থাকি? সে বিষয়ে আমি আজকে আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করব। প্রথমে যে কারণে হতে পারে সেটা হচ্ছেঃ ফুড চেইন। অনেক সময় আমাদের খাবার-দাবারে বিভিন্ন রকম কালার এড করা থাকে। সেই খাবার-দাবার যদি আমরা খেয়ে থাকি সেই ক্ষেত্রে সেই খাবারের কালার আমাদের দাঁতে লেগে এক ধরনের ইয়েলো বা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের যেমন চেরি। এই ধরনের খাবার যদি আমরা খেয়ে থাকি সেই ক্ষেত্রে ওই কালার গুলা আমাদের দা এসে লেগে থাকে এবং যাতে একটা ডিসিশন তৈরি হয়ে থাকে। সেটা হচ্ছে চা বা কফি। আমাদের দৈনন্দিন জীবনের চেয়ে থাকি এবং এটা হচ্ছে আমাদের পছন্দের তালিকায় অন্যতম। কিন্তু মুখের দাগ পড়ার জন্য বা দাঁতে দাঁত পড়ার জন্য এবং কফি দারুণভাবে আমাদেরকে এফেক্ট করে থাকে।

প্রকৃত দেখা যায়, মুখে অনেক সময় কালচে কালচে এক ধরনের চেইন পড়ে থাকে। যেটা হচ্ছে পড়ে থাকলে পরবর্তীতে আমাদের অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যেতে হয় এবং স্কেলিং ও পলিশিং এর মাধ্যমে সেই দাগ দূর করতে হয়। ঘরোয়া উপায়ে সেটা কোন ভাবে তখন উঠানো সম্ভব হয়না। কেমিক্যাল আমরা অনেক সময় ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করতে বলি এবং মাউথওয়াশ ফ্লোরাইডযুক্ত মাউথওয়াশ ব্যবহার করতে বলে দেখা যায়। যদিও ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করার দরুন আমরা অনেক সময় রাতে এক ধরনের ক্লোরাইড এর জন্য ফ্লুরোসিস জাতীয় এক ধরনের দাগ পড়ে থাকে। বাইরে থাকে দেখা যায়, বাইরের দেশগুলোতে ওরা অনেক সময় পানিতে ক্লোরাইড এড করে দেয় এবং সাধারণত দেখা যায় অনেক সময় রাস্তাঘাটে জাতীয় বিভিন্ন কেমিক্যাল জাতীয় কিছু করা থাকে। যেগুলো হয়েছে মুখের দাগ দূর করবে এরকম বিভিন্ন বিজ্ঞাপনে তারা রোগীদেরকে আকর্ষণ করার চেষ্টা করে। কিন্তু এই ধরনের কেমিক্যাল জাতীয় লোশন আমাদের মুখের দাগের জন্য অন্যতম কারণ এবং এসব বিজ্ঞাপন থেকে অবশ্যই আমরা নিজেদের বাঁচিয়ে রাখব।

পরবর্তীতে পয়েন্ট সেটা হচ্ছে আঘাতজনিত কারণে অনেক সময় দেখা যায় আমরা অনেক কারণে আঘাত পেয়ে থাকি বা নলকূপের অনেক সময় হচ্ছে আমরা আঘাত লেগে। আমাদের অনেক বছর ওই অবস্থায় থাকতে থাকতে একসময় দেখা যায় তাতে দিস্কাশন শুরু হয়ে যায় এবং সে আঘাত জনিত দূষণ দূর করার জন্য শরণাপন্ন হতে হয়। ডক্টরের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা পদ্ধতি আমরা দিয়ে থাকি। অনেক সময় দেখা যায় রুট ক্যানেল করা যাতে আমরা করতে বলি কিন্তু রুট ক্যানেল। যদি দীর্ঘদিন অবস্থায় থাকে সেই ক্ষেত্রে দেখা যায় অনেক সময় রুট ক্যানেল করা যাত্রী দীর্ঘদিন অবস্থায় করা থাকলে সেখানে একধরনের বিশ্লেষণ হয়ে যেতে পারে। সে জন্য রুট ক্যানেল চিকিৎসার পর আমরা অবশ্যই রোগীদেরকে করার পরামর্শ দিয়ে থাকে। আর তা না হলে তাতে এক ধরনের হয়ে থাকে।

দাঁতের দাগ দূর করা এবং দাঁত সাদা করার উপায়

এরপর যদি আমরা নিয়মিত দাঁত ব্রাশ না করে সেই ক্ষেত্রে হচ্ছে এবং মাড়ির অনেক সময় দাতে অনেক কালেকশন নিয়ে আসে বাধাতে হচ্ছে এক ধরনের দাগ দেখা যায়। সেই ক্ষেত্রে ঐটার জন্যই হয়ে থাকে। তবে 8 বছরের নিচে বাচ্চাদের কে আমরা টেট্রাসাইক্লিন কখনো সাজেস্ট করি না। আমাদের অনেকেরই একটা অভ্যাস থাকে। স্মোকিং এর জন্য আদালতে দাঁত পড়ার অন্যতম কারণ। রাতে এক ধরনের কাজ করে থাকে সেটা হচ্ছে আপনার আসন টেকনিকের মাধ্যমে কখনো ওইভাবে প্রপারলি রিমুভ হয় না। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই একজন ডেন্টাল সার্জনের কাছে যেতে হয় এবং ক্যানিং এর মাধ্যমে সেটা দূরীভূত করতে হয়। পরবর্তীতে তা হতে পারে আপনার মুখের দাগের একটি অন্যতম কারণ হতে পারে। আয়রনের দাগ দেখা যায়। পানিতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে এবং আয়রন জাতীয় পানি যদি আমরা যেগুলার বেচে পান করতে থাকি।

সেই ক্ষেত্রে হচ্ছে তাতে এক ধরনের দাগ পড়ে থাকে এবং সেটা হচ্ছে আয়রনের দাগ। এভাবে আপনার যদি সম্ভব না হয় সে ক্ষেত্রে অবশ্যই একজন ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হয় এবং স্কেলিং এর মাধ্যমে সেই রাতটা দূরীভূত করা হয়। আমাদের অনেকেই হচ্ছে তামাক জর্দা পান সুপারি এ ধরনের জিনিসের প্রতি অ্যাট্রাকশন থেকে থাকে। অবশ্যই একজন ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে এ দাগগুলো দূরীভূত করতে হয়। এখন আমি আলোচনা করব এর দাত গুলা কিভাবে আমরা কোন চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে দূরীভূত করতে পারে।

সেক্ষেত্রে যদি আপনার মুখের ক্যালকুলাস হয়ে থাকে সেই ক্ষেত্রে অবশ্য একজন ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে এবং স্কেলিং ও পলিশিং এর মাধ্যমে সেই দাগ দূর করতে হবে। অবশ্যই নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করতে হবে। মাউথওয়াশ ইউজ করতে হবে এবং ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করতে হবে। এই দাগ গুলো থেকে যদি আপনি মোটামুটি পেতে চান এবং যে আঘাতজনিত দাগ গুলো রয়েছে সেগুলো হচ্ছে রুট ক্যানাল ট্রিটমেন্ট এর মাধ্যমে আমরা রোগীদেরকে করে ওই দূর করতে পারি এবং ট্রাইটেশন হয়ে থাকে সেটা হচ্ছে একটা চিকিৎসা পদ্ধতি রয়েছে। দাঁতে দাগ দূর করার জন্য এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে দাঁতের ক্ষয় হয়ে থাকে সেই দাগ দূর করার জন্য অবশ্যই আমরা ফিলিং করতে বলি। ফিলিং এর মাধ্যমে সেই দাগ দূরীভূত করা যায়। সেজন্য অবশ্যই আপনাদেরকে ডক্টরের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে এবং দাগ মুক্ত সুন্দর আসি তাহলে আপনারা পেতে পারেন ধন্যবাদ সবাইকে।

Powered by Blogger.