বাংলাদেশের চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা

বাংলাদেশের প্রতিনিয়ত চিকিৎসার ব্যবস্থা উন্নয়ন করা হচ্ছে। চিকিৎসার ব্যবস্থা যত হই উন্নতি হবে ততই রোগী রোগ আরোগ্য লাভ করবে। বাংলাদেশের মৌলিক চাহিদার মধ্যে এটি একটি অন্যতম। এছাড়া বাংলাদেশ পরিবহন ব্যবস্থা বিশেষ করে এম্বুলেন্স  চিকিৎসা খাতে সুযোগ-সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। চিকিৎসা ব্যবস্থা একটি দেশ উন্নয়ন হলে জাতি দ্রুত সেবা পেতে পারে।সেবাপ্রদানের দেশ হিসেবে বাংলাদেশে বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে চিকিৎসা খাতে রোগ নির্ণয় বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। এ পর্যন্ত পৃথিবীতে যত মানুষ এসেছে সবাই কোন না কোন রোগে আক্রান্ত হয়েছে।যে কোনো মানুষই হোক না কেন সে কোনো না কোনো ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। চিকিৎসা খাতে উন্নয়ন হবে সেবার ব্যবস্থা উন্নয়ন হবে।

বাংলাদেশের চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা

এছাড়া বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ গুলোতে চিকিৎসা খাতে ইমার্জেন্সি কল করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যে কেউ তাদের সকল সমস্যা অনলাইনে অথবা অফলাইনে বলতে পারে এবং রোগ নিরাময়ে বিশেষভাবে সুযোগ-সুবিধা নিতে পারে। বর্তমান আবহাওয়া যেদিকে যাচ্ছে সেই দিক থেকে বিবেচনা করলে  বিশ্বে প্রতিনিয়ত প্রতি সেকেন্ডে কেউ না কেউ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এবং মারা যাচ্ছে। যে কোন ব্যক্তি রোগাক্রান্ত হলে অবশ্যই তাকে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে এবং জরুরী ভিত্তিক সেবার ব্যবস্থা নিতে হবে। বর্তমানে বিশ্বে প্রতিনিয়ত রোগে আক্রান্ত হলে হাসপাতাল এবং চিকিৎসা খাদ্য উন্নয়ন হচ্ছে। বলা যায় প্রযুক্তিগত দিক থেকে চিকিৎসা খাতে এখন বিশেষ ভূমিকা রাখছে। ভবিষ্যতে মানুষ চিকিৎসার জন্য বাসা থেকেই সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেয়ে যাবে। এটা শুধুমাত্র সম্ভব হবে বর্তমান প্রযুক্তির ফলে।

বর্তমানে অনেক হাসপাতালেই রোগ নিরাময়ের জন্য আবাসিক শয্যার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। এছাড়াও সরকারিভাবে হাসপাতালে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে হাসপাতালে পাশাপাশি ক্লিনিক এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিশ্বের যে সকল হাসপাতালগুলি রয়েছে সে সকল হাসপাতালগুলিতে দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করা হয়ে থাকে।  বিশ্বের সকল দেশে যেকোনো ব্যক্তি কে চিকিৎসা সর্বিক  সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়ে থাকে। তবে সরকারি হাসপাতালগুলোতে স্বল্প টাকায় চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে এছাড়াও বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে সেগুলোতে চিকিৎসার খরচ অধিকাংশ বেশি হয়ে থাকে। বর্তমানে বিশ্বের সকল দেশেই সরকারিভাবে হাসপাতালে সুযোগ-সুবিধা রয়েছে সেগুলোতে মানুষ বেশি সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে থাকে।

বর্তমানে বিশেষ করে আমেরিকাতে চিকিৎসার জন্য উন্নত ব্যবস্থা প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। অনেকে সেখানে চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য যায়। তবে একেক দেশে একেক ধরনের চিকিৎসার ব্যবস্থা বিশেষভাবে সুবিধা রয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হচ্ছে তবে এই ক্যান্সার থেকে ভারত খুব সহজেই রোগ নিরাময়ের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে। অনেকেই ভারতের কাছ থেকে চিকিৎসার সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করেছে। এছাড়াও চিকিৎসা জন্য আমেরিকা বিশেষভাবে বিখ্যাত। তারা চিকিৎসার সার্বিক সহযোগিতা করে থাকে। এছাড়াও ক্যান্সার থেকে বাঁচার জন্য অনেকে আমেরিকাতে যাচ্ছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের নতুন মোড় হিসেবে ঔষধের ব্যবস্থা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং নতুন যেসব রোগ বের হচ্ছে তা খুব সহজেই ঔষধ তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। 

বর্তমানে প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনায় এবং নানা কারণে শারীরিক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে দেশবাসী।  সকল সমস্যা সমাধানের জন্য অবশ্যই উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থার দারগোড়ায় যেতে হয়।  চিকিৎসা ক্ষেত্রে যদি কেউ ভালোভাবে সুযোগ-সুবিধা না পেয়ে থাকে তাহলে বলা যায় তার লাইফটা কোন না কোনভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে।  আমাদেরকে উচিত উন্নত চিকিৎসার জন্য সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করা।  বর্তমানে চিকিৎসার জরুরী সরঞ্জাম বৃদ্ধি পেয়েছে সেই সরঞ্জামগুলি খুব সহজে রোগগুলোকে ডিটেক্ট করে উন্নত চিকিৎসার প্রসার ঘটেছে।  বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের রোগ গুলি বেশি দেখা যায় তার মধ্যে জ্বর, সর্দি, মাথাব্যথা, কাশি, গ্যাস জনিত রোগ ইত্যাদি।  এসকল চিকিৎসার জন্য রয়েছে অবশ্যই উন্নত ব্যবস্থা।

বাংলাদেশের প্রতিনিয়ত বলা যায়, উন্নয়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাতি হলো চিকিৎসাব্যবস্থার খাত। বর্তমানে গ্রামে এবং শহরের চিকিৎসার জন্য রয়েছে বিশেষ ধরনের সুযোগ-সুবিধা। ডাক্তার এবং নার্স এর জন্য প্রতিবছরই লোক নিয়োগ দেওয়া হয়ে থাকে। বাছাইকৃত লোক নিয়োগের মাধ্যমে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়। এটা চরম সত্য যে, যে দেশে ডাক্তার এবং নার্স উন্নত চিকিৎসা দিতে পারবে সে দেশতো উন্নয়ন হবে। কারণ সে দেশে অধিক পরিমাণে চিকিৎসার জন্য জনগণ যেতে থাকবে। ফলে সে দেশে আর্থিকভাবে উন্নয়ন সম্ভব। আপনি জানেন কি? বিশ্ব সংস্থার অনুযায়ী প্রতি 10 হাজার মানুষের জন্য প্রয়োজন 10 জন চিকিৎসক এবং 30 জন নার্স। অথচ বাংলাদেশের সেখানে রয়েছে 5.5 জন চিকিৎসক এবং 2.1 জন নার্স। বাংলাদেশ উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন চিকিৎসক এবং নার্স।

আপনি জানেন কি বাংলাদেশে কয়টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রয়েছে? হ্যাঁ বাংলাদেশ 15 টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রয়েছে এছাড়াও স্নাতকোত্তর হাসপাতাল রয়েছে 11 টি এবং জেনারেল ও জেলা পর্যায়ে হাসপাতাল রয়েছে 63। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রয়েছে 424 এবং অন্যান্য হাসপাতাল রয়েছে 94 টি। এসকল হাসপাতালগুলি আমাদেরকে উন্নত চিকিৎসা দিয়ে থাকে। এছাড়াও বাংলাদেশের রয়েছে সরকারি শয্যাসংখ্যা 49 হাজার 414 টি। বাংলাদেশে 18 কোটি মানুষের জন্য বলা যায় এটি চিকিৎসার ব্যবস্থা উন্নয়ন করা অত্যন্ত জরুরি কেননাদেশে প্রতিনিয়ত জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে সেইসঙ্গে বৃদ্ধি করতে হবে চিকিৎসার খাত এবং  চিকিৎসার সকল প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। তাহলেই কেবল একটি দেশ উন্নত হবে।


শেয়ার করুন